লঞ্চ যাত্রীদের আনা নেয়ার ব্যাপারে নতুন নিয়ম

আগামীকাল (১৫ জুলাই) থেকে আটদিনের জন্য শিথিল বিধিনিষেধ শুরু হচ্ছে। এই আটদিন লঞ্চ চলাচল করবে। নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানিয়েছেন,

এই সময়ে লঞ্চের ডেকে করা মার্কিং অনুযায়ী যাত্রীদের বসতে হবে। বুধবার (১৪ জুলাই) সচিবালয়ে লঞ্চ, ফেরি ও স্টিমারসহ জলযান চলাচল সংক্রান্ত ঈদ ব্যবস্থাপনা সভা শেষে এ তথ্য জানান নৌ-প্রতিমন্ত্রী।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেখুন বাস, ট্রেনের সিটে নম্বর দেয়া থাকে। লঞ্চের ক্ষেত্রে জটিল। কেবিনগুলো স্বাস্থ্যবিধি পুরোপুরি মানা যায়। ডেকের ক্ষেত্রে কষ্টকর হয়ে যায়। কীভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানা যায়,

ডেকগুলোতে মার্কিং করা হয়। সুতরাং আমরা এবারও মার্কিং করেছি। ডেকগুলোকে মার্কিং অনুযায়ী বসতে হবে। এছাড়া শতভাগ মাস্ক পরতে হবে। এ ব্যাপারে কোনো ধরনের ছাড় থাকবে না।

কোনো লঞ্চ মালিক শিথিলতা দেখালে তাদের জরিমানার আওতায় আনা হবে বলে জানান নৌপ্রতিমন্ত্রী।

তিনি জানান, লঞ্চ মালিকরা লঞ্চের স্টাফদের করোনা পরীক্ষা করে লঞ্চে কাজ করতে দেবেন। নৌখাতকে অগ্রাধিকার দিয়ে তাদের জন্য টিকা দেয়া হয়েছে।

১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত লঞ্চ চলবে জানিয়ে খালিদ মাহমুদ বলেন, এটিও কিন্তু বিধিনিষেধের মধ্যে পড়ে গেলো। কারণ ২১ জুলাই ঈদ। ২৩ জুলাই থেকে ফের বন্ধ। যাত্রীদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে তিনি ঝুঁকি নিয়ে ঢাকা আসবেন কি-না এবং ঢাকা থেকে বের হয়ে যাবেন কি-না। কারণ যাওয়া ও ফিরে আসাটা ঝুঁকিপূর্ণ। কাজেই এটা চিন্তা করে সবাই যাত্রা করবে বলে আমি মনে করি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*